অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা

প্রিয় পাঠক পাঠিকা আজকের এই আর্টিকেলটিতে আমি, অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং এর ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করব। অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা জানার পূর্বে চলুন আমরা জেনে নেই অ্যালোভেরা কি।

মধু দিয়ে রূপচর্চা। ত্বক ও চুলের যত্নে মধু

অ্যালোভেরা (ঘৃতকুমারী) কী?

অ্যালোভেরা অ্যালো জিনাসের একটি রসালো উদ্ভিদ প্রজাতি। এটি চির সবুজ , বহুবর্ষজীবী এবং ছোট কান্ডযুক্তি উদ্ভিদ। এটি ৬০–১০০ সে.মি. ( ২৪ – ৩৯ ইঞ্চি ) পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। অ্যালোভেরা সাধারনত আফ্রিকা , এশিয়া , ইউরোপ এবং আমেরিকার শুষ্ক অঞ্চলে জন্মে।এখন অ্যালোভেরা উষ্ণ জলবায়ু সহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে  জন্মে থাকে।

বাংলা ভাষায় অ্যালোভেরা (Aloe Vera) ”ঘৃতকুমারী ”নামে পরিচিত।

অ্যালোভেরা ব্যাপকভাবে ব্যাক্তিগত যত্ন,পন্য, প্যসাধনী, ডিটারজেন্টের পন্য হিসেবে বানিজ্যিক ভাবে ব্যাবহৃত হচ্ছে।

”অ্যালোভেরা গাছটি বহু শতাব্দি ধরে পরিচিত এবং ব্যাবহৃত হয়ে আসছে । প্রাচীন রেকর্ড থেকে দেখা যায় যে, অ্যালোভেরা চিকিৎসা ও রোগনিরাময়ের জন্য বহু শতাব্দি ধরে পরিচিত । বাইবেল সহ বহু প্রাচীন বই এ অ্যালোভেরা ব্যাবহারের কথা উল্লেখ আছে । ৬,০০০ বছরে  পুরোনো খোদাই করা অ্যালোভেরা মিসরে আবিস্কৃত হয়ে ছিল । এটিকে অমরত্বের উদ্ভিদ  (“Plant of Immortality “) হিসাবে বিবেচনা করা হতো । “

অ্যালোভেরার বৈজ্ঞানিক নাম

ঘৃতকুমারী (বৈজ্ঞানিক নাম: Aloe vera), (ইংরেজি: Medicinal aloe, Burn plant) একটি রসালো উদ্ভিদ প্রজাতি।

অ্যালোভেরার ব্যাবহার

কেন আমরা অ্যারোভেরা ব্যবহার করবো ?

এটি ভিটামিন এ , সি ,ই এর মতো অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এবং এতে আটটি অত্যাবশ্যক অ্যামিনো অ্যাসিডের মধ্যে সাতটিই বিদ্যামান এটি অ্যান্টি ইনফ্র্যামেটরি বৈশিষ্টের জন্য পরিচিত ।

অনেক উপায়ে অ্যালোভেরা ব্যবহার করা যায় । এটি পানীয় ,ত্বকের লোশন ,প্রসাধনী , মলম , ডিটারজেন্টের পন্য আকারে বাজারে পাওয়া যায় ।

”মিশরে রানী ক্লিওপেট্রা তার নিয়মিত সৌন্দর্য চর্চায় অ্যালোভেরা ব্যাবহার করেছিলেন।আলেকজান্ডার দ্যা গ্রেট এবং ক্রিস্টোফার কলম্বাস সৈন্যদের ক্ষতের চিকিৎসায় এটি ব্যাবহার করেছিলেন ।“

অ্যালোভেরার উপকারিতা

(১) রূপচর্চায় অ্যালোভেরার ব্যবহার

  • ঠোঁট নরম রাখতে : অ্যালোভেরার পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি যা শুষ্ক ফাঁটা ঠোঁটের জন্য খুবই উপকারী। শুষ্কমৌসুমে ঠোঁট ফাটা রোধ করতে আমরা অ্যারোভেরা জেল ব্যাবহার করতে পারি।
  •   শুষ্ক ত্বকের জন্য : শুষ্ক ত্বকের জন্য সাধারণত ময়েশ্চারইজার হিসেবে অ্যালোভেরা জেল ব্যাবহার খুবই উপকার পাওয়া যায়। এটি দ্রুত শোষণকারী এবং একটি প্রমানিত হাইড্রেটর।
  •  পিম্পল এবং ব্রনের চিকিৎসায় : বিরক্তিকর ব্রনের চিকিৎসায় দিনে দুইবার ব্যাবহার করুন ফলাফল নিজেই দেখতে পাবেন।
  • চোখের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে : সুন্দর চোখ কে না চায় ? চোখের চারপাশে অ্যালোভেরা জেল ব্যাবহার করলে চোখের ক্লান্ত ও ফোলাভাব কমে যাবে।
  • ত্বকের বলিরেখা দূর করতে :ত্বকের বলিরেখা দূর করতে অ্যালোভেরার জুরিনেই। ত্বক উজ্বল করতে এটি ব্যাবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। অ্যালো পিগমেন্টেশন ত্বকের কালোদাগ দূর করতেখুবই কার্যকর।

(২) চুলের যত্নে অ্যালোভেরার উপকারিতা

  • চুল ভেঙ্গে যাওয়া কমাতে অ্যালোভেরা খুবই কার্যকর। মাথায় ম্যাসেজ করলে এটি  ত্বকের রক্ত সঞ্চালনকে উদ্দিপিত করে।
  •  ঘরে তৈরি অ্যালোভেরা শ্যাম্পু চুলের খুশকি দূর করতে সাহায্য করে।
  •  সিল্কি আর মসৃন চুলের জন্য চুলের কন্ডিশনারে অ্যালোভেরা জেল অথবা অ্যালোভেরা যুক্ত কন্ডিশনার ব্যাবহার করুন উপকার পাবেন।

(৩) বিভিন্ন রোগে অ্যালেভেরার ব্যাবহার

  •  রান্না ঘরে ছোট ছোট দূর্ঘটনা (পুড়ে যাওয়া ,কেটে যাওয়া ) ঘটেই যায়।  ‍পুড়ে যাওয়া  বা কেটে যাওয়া অংশে খাঁটি অ্যালেভেরা জেল ব্যাবহার করলে দারুন উপকার পাওয়া যায়।
  • পোকার কামড়ে অ্যালো জেল ব্যাবহার প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিকের কাজ করে।
  •  অ্যাালার্জি জনিত ত্বকের প্রতিক্রিয়া প্রতিরোধে এটি দারুন ভাবে কাজ করে।
  • একজিমা যার হয়েছে তার আর রক্ষা নেই। অ্যালো জেল একজিমা দূর করতে দারুন ভাবে কার্যকরী।
  •  বদহজম জনিত সম্যাসা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে অ্যালোভেরার রস। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য নিরমূল করতে সহায়তা করে।
  •  অ্যালভেরার পাতা পানিতে সিদ্ধ করে বাষ্পে শ্বাস নিলে শ্বাস নালির প্রদাহ হ্রাস করতে সাহায্য করে।
  •  রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে অ্যালেভেরার রস দারুন কাজ করে। এটি রক্তের গ্লুকোজের স্তর কমিয়ে আনতে সাহায্য করে।
  •  অ্যারোভেরা যুক্ত টুথপেস্ট মাড়ি শক্তিশালী করতে এবং স্বাস্থ্যকর দাঁত পেতে কার্যকর।
  •  রক্তের কোলেস্টরল কমাতে অ্যালোভেরার রসকার্যকরী।
  •  শারীরিক ক্লান্তি দূর করতে , শক্তি স্থরবৃদ্ধি করতে , মনসিক চাপ কমাতে এটি ব্যাপক ভাবে কার্যকর।

এলোভেরা জেল ত্বকে ব্যবহারের নিয়ম

আপনার ত্বক পরিষ্কার করে এবং ভাল করে শুষ্ক করে নিয়ে তাতে অ্যালোভেরার একটি পাতলা স্তর প্রয়োগ করুন। যে পর্যন্ত ত্বক সম্পূর্ণরূপে শুষে না নেয় সে পর্যন্ত আলতোভাবে ম্যাসেজ করুন। ফলাফল পেতে সপ্তাহে অন্তত দুদিন ব্যবহার করুন।

অ্যালোভেরার রস খাওয়ার উপকারিতা

অ্যালোভেরার রস নিয়মিত খেলে- হজমে সাহায্য করে, শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, ত্বকে স্বাস্থ্যের উন্নতি করে এবং ওজন কমাতেও সাহায্য করে। তাহলে বুঝতেই পারছেন, এটি শুধু আপনার বাহ্যিক নয় অভ্যন্তরীণ সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। তবে এর কিছু অপকারিতা এবং স্বাস্থ্যঝুঁকির রয়েছে।

অ্যালোভেরার অপকারিতা এবং স্বাস্থ্য ঝুকি

অ্যালো জেল (উদ্ভিদের অংশ যা সাধারণত ক্রিম এবং ময়শ্চারাইজার গুলিতে পাওয়া যায়) ব্যাবহার করা সাধারণত নিরাপদ এবংসঠিক নিয়মে ব্যবহার করলে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে। তবে সবার ত্বক ও স্বাস্থ্য এক রকম নয়। অ্যালো জেল ব্যাবহার করার পূর্বে পেচ টেস্ট করতে ভুলবেন না। যে কোন হারবাল উদ্ভিদ তখনই সঠিক ভাবে কাজ করবে যখন আমরা সঠিক ভাবে ব্যাবহার করবো।

অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা
অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা

অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তর

অ্যালোভেরা সেবন করা কি নিরাপদ?

সাধারণত সেবন করা নিরাপদ যখন সেটা পরিমিত পরিমাণে হবে। যাই হোক না কেন একজন স্বাস্থ্যসেবা চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে যেকোন ঔষধ সেবন করা নিরাপদ।

গর্ভাবস্থায় অ্যালোভেরা জুস খাওয়া যাবে?

গর্ভাবস্থায় যেকোনো ঔষধ কিংবা ভেষজ পণ্য ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ করা খুবই জরুরী। তাই আপনি যদি এলোভেরা ব্যবহার করতে চান ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিতে পারেন।

অ্যালোভেরা বিশ্বের অনেক জাতির একটি প্রিয় ভেষজ। মানব বানিজ্য ও মাইগ্রেশন এই উদ্ভিদ টিকে বিশ্ব জুড়ে পরিচিত করেছিল। এটি বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে ব্যাবহৃত হয়। অ্যালোভেরার ব্যাপক চাহিদার জন্য বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্নদেশে এটিকে বানিজ্যিক ভাবে চাষ করা হচ্ছে। অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও অ্যালোভেরার বানিজ্যিক ভাবে ব্যাপক চাষ শুরু হয়েছে।

সবশেষে এ কথা বলা যায় যে , অ্যালোভেরা এমন একটি ভেষজ উদ্ভিদ যা বিনা খরচে আপনার রূপচর্চায় কাজে লাগবে। বাজার থেকে ২০ থেকে ৩০ টাকায় একটি গাছ নিয়ে আসলে সে গাছ থেকে কিছুদিন পরে দেখবেন অনেক নতুন গাছ জন্মাবে। গাছের পরিচর্যা পরিচর্যা এবং উৎপাদনের খরচ কম। আপনি ঘরে থাকা আলুর খোসা, কলার খোসা, ব্যবহৃত চা পাতা দিয়ে গাছের সারের চাহিদা পূরণ করতে পারবেন। তাহলে আর দেরি কেন, আজই বাজার থেকে একটি অ্যালোভেরা গাছ এনে আপনার বারান্দায় খালি জায়গা সৌন্দর্য বৃদ্ধি করুন। প্লাস্টিকের বোতলে রোপণ করতে পারবেন।

Leave a Comment